৭ই অক্টোবর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ, ২২শে আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

সূর্যমুখী ফুলে ছেয়ে গেছে মাঠ

নগর বাংলা২৪ ডট কম:
১০২
header

গোপালগঞ্জের কৃষকেরা ক্রমশ সূর্যমুখী ফুলের চাষাবাদে উৎসাহী হয়ে উঠছে। জেলার ৫ টি উপজেলার সর্বত্র চাষাবাদ করা হচ্ছে এ ফুলের। মাঠে মাঠে ছড়িয়ে পড়েছে ফুলের সৌন্দর্য। ভ্রমর এসে খেলা করছে ফুলে ফুলে। অনেক দূর থেকে লোকজন এসে দেখতে ভিড় করছে বিকেল বেলায়। এবার ফলন ও ভালো হওয়ায় কৃষকের মুখে আনন্দের হাসি।

ইতিমধ্যে কৃষকরা সুর্যমুখী বিক্রি করে ভালো দাম ও পেয়েছেন। এবার করোনায় কৃষকের চাষাবাদে প্রভাব পড়লেও এ অঞ্চলের সুর্যমুখী চাষে তার কোন প্রভাবই পড়েনি। বরং ভালো চাষ হওয়ায় মানুষের প্রয়োজন মেটাতে সাহায্য করেছে।

গোপালগঞ্জের জমি নিচু হওয়ায় এখানকার জমিতে কেবল ধান ও পাট চাষে আগ্রহ ছিল এখানকার কৃষকদের। সাম্প্রতিকালে জেলার সদর উপজেলা, কাশিয়ানী, মুকসুতপুর, কোটালীপাড়া, টুঙ্গিপাড়া উপজেলার কৃষকেরা সুর্যমুখী চাষ শুরু করেছে। এ বছর এ জেলার ৬০ হেক্টর জমিতে সূর্যমুখীর চাষ হয়েছে যা গত বছরের চেয়ে অনেক বেশি। এরই মধ্যে কৃষক তাদের সূর্যমুখী বিক্রি শুরু করেছে।

সূর্যমুখী ফুলের চাষি আনোয়ার হোসেন বলেন, এ ফুলের তেলের স্বাদ ভালো ও স্বাস্থের জন্য উপকারী হওয়ায় স্থানীয় বাজারে চাহিদা রয়েছে ব্যাপক। সরকারিভাবে পৃষ্ঠপোষকতা পেলে কৃষকেরা ব্যাপক সূর্যমুখী ফুলের চাষাবাদে উৎসাহী হয়ে উঠবেন।

টুঙ্গিপাড়া উপজেলা কৃষি অফিসার, কৃষিবিদ মো. জামাল উদ্দিন, এ বছর টুঙ্গিপাড়া উপজেলায় ১২০ বিঘা জমিতে সূর্যমুখী ফুলের চাষ হয়েছে।আমরা কৃষকদের পাশে থেকে পরামর্শ প্রদান করে আসছি।

গোপালগঞ্জ কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের উপ-পরিচালক ড. অরবিন্দু কুমার রায় জাগো নিউজকে বলেন, আমাদের সহযোগীতার কারণে গোপালগঞ্জের ৫টি উপজেলায়ই সূর্যমুখী ফুলের চাষাবাদ ক্রমশ বৃদ্ধি পাচ্ছে। এখানকার সুর্যমুখীর তেল স্থানীয়দের যেমন চাহিদা মেটাচ্ছে তেমনি এখানকার এ তেল বাজারজাত হচ্ছে আশপাশে জেলাসহ রাজধানীতেও।

After Related Post