১লা ডিসেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ, ১৬ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

পাঁচথুবী ইউপি চেয়ারম্যানের উদ্যোগে পাঁচ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান পেল শহীদ মিনার

নগর বাংলা২৪ ডট কম:
১১০
header

কুমিল্লা আদর্শ সদর উপজেলার পাঁচথুবী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ইকবাল হোসেন বাহালুল এর উদ্যেগে ইউনিয়নে ৫ টি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে নির্মাণ করা হয়েছে স্থায়ী শহীদ মিনার। কুমিল্লা সদর আসনের এমপি বীর মুক্তিযোদ্ধা আ ক ম বাহাউদ্দিন বাহার এমপির পরামর্শে মুজিব জন্মশতবর্ষ উপলক্ষে ভাষা শহীদদের সম্মান জানাতে ইউনিয়ন পরিষদের অর্থায়নে এ শহীদ মিনার নির্মাণ করা হয়।

রবিবার (২১ ফেব্রয়ারী) মহান শহীদ দিবস ও আন্তজার্তিক মাতৃভাষা দিবসে ৫২ এর ভাষা আন্দোলনের শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদনের মধ্যে দিয়ে এসব শহীদ মিনারের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করা হবে। এ উপলক্ষে আয়োজিত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি থাকবেন কুমিল্লা মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারন সম্পাদক ও জেলা ফুটবল এসোশিয়েশনের সভাপতি আরফানুল হক রিফাত।

স্থানীয়রা জানান, পাঁচথুবী ইউনিয়নের ১৩ টি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের মধ্যে কোন প্রতিষ্ঠানেই স্থায়ী শহীদ মিনার ছিল না। এর মধ্যে ৪ টিতে ক্যাম্পাসে অবস্থিত হাই স্কুলের শহীদ মিনারে শ্রদ্ধা জানাতো শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা। বাকি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের কোনোটিতে কলাগাছ কিংবা বাঁশ-কাঠ দিয়ে অস্থায়ীভাবে শহীদ মিনার বানিয়ে দিবস পালন করা হতো। এবার একুশে ফেব্রুয়ারিতে স্থায়ীভাবে নির্মিত শহীদ মিনারে শহীদদের প্রতি বিনম্র শ্রদ্ধা জানাবে শিক্ষার্থীরা। পাঁচথুবী ইউনিয়নে এবার নতুন করে শহীদ মিনার নির্মাণ করা হয়েছে শহরতলীর চাঁন্দপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, ঝালুয়াপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, শালধর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, রাচিয়া ভাগবের সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, গোলাবাড়ি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ক্যাম্পাসে। এলাকাবাসী বলছেন, শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে স্থায়ী শহীদ মিনার নির্মাণ সত্যিই ইউপি চেয়ারম্যানের একটি মহৎ উদ্যোগ। শনিবার বিকালে নবনির্মিত এসব শহীদ মিনার পরিদর্শন করেন ইউপি চেয়ারম্যান ইকবাল হোসেন বাহালুল। এসময় ইউপি সদস্যবৃন্দ, এলাকার গন্যমান্য ব্যক্তিবর্গ সহ স্থানীয় আওয়ামী লীগের নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।

চাঁন্দপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মাসুদা বেগম বলেন, প্রতিষ্ঠার পর থেকেই এ ইউনিয়নের সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়গুলোতে কোনো স্থায়ী শহীদ মিনার ছিল না। ফলে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসসহ বিভিন্ন জাতীয় দিবসে এসব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের কোনোটিতে কলাগাছ কিংবা বাঁশ-কাঠ দিয়ে অস্থায়ীভাবে শহীদ মিনার বানিয়ে দিবস পালন করা হতো। আবার কোনো কোনো প্রতিষ্ঠানে পতাকা উত্তোলন করে দিবস পালন করা হতো। এবার স্থায়ী শহীদ মিনার নির্মাণ করে ইউনিয়ন চেয়ারম্যান শিক্ষক-শিক্ষার্থীদের সুযোগ করে দিয়েছে। এছাড়া বিদ্যালয়ের মাঠ ভরাট ও বাউন্ডারী নির্মাণের ফলে আমাদের বিদ্যালয়ের পরিবেশ পরিবর্তন এসেছে। শিক্ষার্থীর সংখ্যা দিন দিন বাড়ছে। আমাদের অভিভাবক হাজী বাহার এমপির প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি।

পাঁচথুবী ইউপি চেয়ারম্যান ইকবাল হোসেন বাহালুল বলেন, এবার ২১ ফেব্রুয়ারি আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসে কলাগাছ নয়, স্কুল মাঠে ইট-পাথরে নির্মিত নতুন শহীদ মিনারে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানাবে শিক্ষক-শিক্ষার্থী ও গ্রামবাসী। শহীদ মিনার তৈরি হওয়ায় মাতৃভাষা দিবস উদযাপনে ব্যাপক আগ্রহ সৃষ্টি হয়েছে। নির্মাণ হয়েছে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারের আদলে। শহীদ মিনারগুলির নির্মাণে খরচ যাই হোক এটার ব্যাপকতা অনেক। আমাদের এ ধরনের উদ্যোগ দেখে শিক্ষার্থীরা বড় হয়ে সমাজে ভালো, সুন্দর ও কল্যাণকর কিছু একটা করার ইচ্ছা জাগ্রত হবে।

স্থানীয়রা বলছেন,কুমিল্লা সদর আসনের এমপি বীর মুক্তিযোদ্ধা আ ক ম বাহাউদ্দিন বাহারের আদর্শের একান্ত অনুসারী তৃণমূলের এই জনপ্রতিনিধির কর্মকান্ড হয়ে উঠেছে অনান্যদের কাছে অনুকরনীয়।

উল্লেখ্য, বৈশ্বিক মহামারী করোনা সংকটের শুরু থেকে সচেতনামূলক প্রচারনা, সুরক্ষা সামগ্রী ও খাদ্য সামগ্রী বিতরণ,কৃষকদের মাঝে সার-বীজ,গাছের চারা বিতরণ,শীতে অসহায় পরিবারের মাঝে কম্বল বিতরণ,পরিচ্ছন্ন আঙ্গিনা পুরস্কার সহ বহুমূখি কর্মকান্ডের মাধ্যমে নিরবিচ্ছিন্নভাবে এলাকার জনগনের পাশে থেকে বেশ সুনাম অর্জন করেছেন পাঁচথুবী ইউপি চেয়ারম্যান ইকবাল হোসেন বাহালুল।

After Related Post