১লা ডিসেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ, ১৬ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

কুমিল্লায় ভ্যানে করে বাড়ি বাড়ি গেল নতুন বই

নগর বাংলা২৪ ডট কম:
১৪৭
header

অনলাইন ডেস্ক।।

শীত-কুয়াশা উপেক্ষা করে প্রতিবার সকালে নতুন বই নিতে বিদ্যালয়ে যেত খুদে শিক্ষার্থীরা। বই নিয়েই কেউ ছুট দিত বাড়ির পথে। কেউবা নতুন বইয়ের ঘ্রাণ নিত মনভরে। কিন্তু এবার এসবের কিছুই হয়নি। করোনার কারণে উত্সব করে বই বিতরণ করা যায়নি। তবে এবার বই বিতরণে ব্যতিক্রমী উদ্যোগ নিয়েছে কুমিল্লা হাইস্কুল। ভ্যানে করে বাড়ি বাড়ি বই পৌঁছে দিয়েছে তারা।

আজ শুক্রবার সকালে কুমিল্লা শহরতলির চানপুর এলাকায় ভ্যানে করে শিক্ষার্থীদের বাড়িতে বই নিয়ে হাজির হন কুমিল্লা হাইস্কুলের একদল শিক্ষক। তাঁরা তালিকা ধরে বাড়ি বাড়ি বই দেন। যেসব এলাকায় ভ্যান নিয়ে যাওয়া সম্ভব হয়নি, সেসব এলাকায় হাতে করে বই নিয়ে যান শিক্ষকেরা।

যেসব সড়কে ভ্যান নিয়ে যাওয়া সম্ভব হয়নি, সেসব এলাকায় হাতে করে শিক্ষার্থীদের বাড়িতে বই নিয়ে যান শিক্ষকেরা। শুক্রবার সকালে কুমিল্লা আদর্শ সদর উপজেলার সুবর্ণপুর এলাকায়
যেসব সড়কে ভ্যান নিয়ে যাওয়া সম্ভব হয়নি, সেসব এলাকায় হাতে করে শিক্ষার্থীদের বাড়িতে বই নিয়ে যান শিক্ষকেরা। শুক্রবার সকালে কুমিল্লা আদর্শ সদর উপজেলার সুবর্ণপুর এলাকায়ছবি: প্রথম আলো
বেলা ১১টার দিকে বই নেয় বিদ্যালয়টির শিক্ষার্থী আবুল হাসান। সে বলে, ‘অন্যবার নিজেরা বই আনতে যেতাম। এবার স্যারেরা বাড়ি এসে বই দিয়ে গেলেন। এটাও খারাপ না।’

একই বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী ফাতেমা বেগমও পেয়েছে বই। সে বলে, ‘বাড়িতে নতুন বই পেয়ে ভালো লাগল। জীবনে এমনভাবে বই দিতে দেখিনি। স্যারদের কাছে আমরা কৃতজ্ঞ।’

বাড়ি বাড়ি গিয়ে বই দেওয়ার বিষয়ে কুমিল্লা হাইস্কুলের প্রধান শিক্ষক মো. হুমায়ুন কবির বলেন, ‘করোনার কারণে এবার বই-উৎসব সেভাবে করা গেল না। তাই আমরা শিক্ষার্থীদের বাড়ি বাড়ি বই পৌঁছে দিচ্ছি।’

একই দিন কুমিল্লা নগর ও জেলার ১১টি উপজেলার সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে স্বাস্থ্যবিধি মেনে আংশিক বই বিতরণ করা হয়েছে।

সকালে নগরের নবাব ফয়জুন্নেছা সরকারি বালিকা উচ্চবিদ্যালয়ে বই বিতরণ কার্যক্রমের উদ্বোধন করেন প্রধান শিক্ষক রোকসানা ফেরদৌস মজুমদার। এ বিদ্যালয়ে নবম, অষ্টম ও চতুর্থ শ্রেণির বই দেওয়া হয়। কুমিল্লা জিলা স্কুলের প্রধান শিক্ষক রাশেদা আক্তার ষষ্ঠ শ্রেণির বই বিলি করেন।

সকাল সাড়ে ১০টার দিকে নগরের আওয়ার লেডি অব ফাতিমা গালর্স হাইস্কুলে গিয়ে দেখা গেল, বিদ্যালয়টির প্রধান শিক্ষক সিস্টার গ্রাসিয়া বই বিতরণ করছেন। সঙ্গে অন্য শিক্ষকেরাও রয়েছেন। এ বিদ্যালয়ে সন্তানকে সঙ্গে নিয়ে বই নিতে আসেন মোস্তাক আহমেদ।

মোস্তাক আহমেদ বলেন, ‘মেয়ে এখানে তৃতীয় শ্রেণিতে পড়ে। তার জন্য বই নিতে এসেছি।’

বেলা ১১টার দিকে কুমিল্লা কালেক্টরেট স্কুল অ্যান্ড কলেজে নবম শ্রেণির বই বিতরণ করেন অধ্যক্ষ নার্গিস আক্তার। কুমিল্লা মডার্ন হাইস্কুলে অষ্টম ও সপ্তম শ্রেণির বই বিতরণ করেন প্রধান শিক্ষক এ কে এম আক্তার হোসেন।

জেলা শিক্ষা কর্মকর্তা মো. আবদুল মজিদ বলেন, কুমিল্লার ১৭টি উপজেলার সব প্রাথমিক ও মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে বই বিতরণ করা হয়েছে। বিতরণ কয়েক দিন চলবে। করোনার কারণে স্বাস্থ্যবিধি মেনে বই দেওয়া হচ্ছে।

সূত্র- প্রথম আলো।

After Related Post