২রা ফেব্রুয়ারি, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ, ১৯শে মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
ব্রেকিং নিউজঃ
একাত্তরে মানবতাবিরোধী অপরাধের মামলায় মৃত্যু দন্ডাদেশ প্রাপ্ত পলাতক আসামি আব্দুল মজিদ গ্রেফতারকুমিল্লার নতুন সিভিল সার্জন ডাঃ নাছিমা আকতারমুরাদনগরে কৃষক খোকন মিয়া হত্যার প্রধান আসামী কারাগারে মো. হাবিবুর রহমানকুবিতে নেত্রকোনা এসোসিয়েশনের নবীন বরণ ও প্রবীণদের বিদায় অনুষ্ঠিতনোয়াখালীতে পাওনা টাকা চাইতে গিয়ে ধর্ষণের শিকার নারীদেশের প্রথম পাতালরেল নির্মাণের উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রীকুমিল্লার হোমনায় দড়িচর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতার পুরস্কার বিতরণকুমিল্লার হোমনায় ফেন্সিডিল ও প্রাইভেটকারসহ দুই মাদক কারবারি আটককুমিল্লার হোমনায় শিক্ষার্থীদের মাঝে শীত বস্ত্র বিতরণ করেন মিউচ্যুয়াল ট্রাস্ট ব্যাংককুমিল্লার হোমনায় উপজেলা প্রশাসন পাবলিক লাইব্রেরি উদ্বোধন

অসুস্থ হাফেজ রাশেদের পাশে মিথলমা সমাজ কল্যান ট্রাস্ট

৮২
header

নিউজ ডেস্ক।।

পরিবারের বড় সন্তান মোঃ হাফেজ রাশেদুল ইসলাম। কুমিল্লা বুড়িচং উপজেলার মোকাম ইউনিয়নের শিকারপুর গ্রামের মাওলানা রুহুল আমিনের ছেলে। রুহুল আমিনের পাঁচ সন্তানের মধ্যে রাশেদ চতুর্থ। গত তিন বছর ধরে কিডনী রোগে আক্রান্ত। পেশায় মাওলানা রুহুল আমিন মসজিদের ইমাম। বাবার আয়ে ছেলের চিকিৎসা খরচ বহন করা সম্ভবপর হয়ে উঠে নি। রাশেদের চিকিৎসার জন্য ২০ লাখ টাকার প্রয়োজন।

এলাকাবাসী ও অন্যান্যদের সহযোগিতায় ১৬ লাখ টাকা যোগাড় হয়। তবে আর মাত্র চার লাখ টাকার জন্য রাশেদের চিকিৎসা বন্ধ হওয়ার উপক্রম হয়। বাবা রুহুল আমিনের কপালে চিন্তার ভাঁজ প্রসারিত হয়। কি করবেন। কোন কূল কিনারা পাচ্ছিলেন না। ভারতে চিকিৎসাধীন ছেলেকে হয়তো দেশে ফিরিয়ে আনতে হবে।

এমন মানবিক খবরে এগিয়ে এলো স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন মিথলমা সমাজ কল্যান ট্রাস্ট। সংগঠনের সদস্যরা সোচ্চার হলেন। অসুস্থ হাফেজ রাশেদের চিকিৎসার জন্য তার বাবা মাওলানা রুহুল আমিনের হাতে তুলে দিলেন ২ লাখ ৪ হাজার ৫শ টাকা। ছেলের চিকিৎসার টাকা হাতে পেয়ে আবেগে আপ্লুত হয়ে যান মাওলানা রুহুল আমিন।

নিজের অনুভুতির কথা বলতে গিয়ে রুহুল আমিন বলেন, মসজিদে ইমামতি করে যে টাকা পাই তা দিয়ে সংসারের খরচ চালাতেই কষ্ট হয়। তার উপর ছেলের চিকিৎসার জন্য এত খরচ কিভাবে জোগাড় করবো। মানুষ আমাকে সহযোগিতা করছে। বিশেষ করে মিথলমা সমাজ কল্যান ট্রাস্ট আমার ছেলের জন্য আর্থিক সহযোগিতা করলো। এখন চিকিৎসার জন্য আর ভাবতে হবে না। আমার ছেলে এখন ভারতের একটি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। আপনারা সবাই আমার ছেলের জন্য দোয়া করবেন। আমি সবার জন্য দোয়া করি। বিশেষ করে মিথলমা সমাজ কল্যান ট্রাস্টের প্রতিটি সদস্যদের জন্য। যারা আমার দূঃসময়ে এগিয়ে এসেছে। আল্লাহ তাদের সবাইকে ভালো রাখুক, অসহায় মানুষের পাশে আরো বেশী এগিয়ে যাওয়ার তৌফিক দান করুক।

মিথলমা সমাজ কল্যান ট্রাস্টের সভাপতি মোঃ তাজুল ইসলাম মাস্টার বলেন, হাফেজ রাশেদুলের চিকিৎসার জন্য তার বাবার হাতে আর্থিক অনুদান তুলে দিয়েছি। খুব ভালো লাগছে। আসলে অসহায় মানুষের পাশে দাড়ানোর সংকল্প নিয়েই মিথলমা সমাজ কল্যান ট্রাস্টের পথ চলা শুরু। তারই ধারাবাহিকতায় আজ হাফেজ রাশেদের পাশে মিথলমা সমাজ কল্যান ট্রাস্ট।

মিথলমা সমাজ কল্যান ট্রাস্টের সাধারণ সম্পাদক মাহাদি মোহাম্মদ মাহিদ বলেন, অসুস্থ হাফেজ রাশেদের চিকিৎসার জন্য তার পাশে দাড়িয়েছি। আমি বিশ^াস করি হাফেজ রাশেদ সুস্থ হয়ে আমাদের মাঝে ফিরে আসবে। ট্রাস্টের উপদেষ্টাসহ যারা রাশেদের পাশে এসে দাড়িয়েছেন সবার প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করে মাহাদি মোহাম্মদ মাহিদ আরো বলেন, অতিতেও অসহায় মানুষের পাশে ছিলো মিথলমা সমাজ কল্যান ট্রাস্ট, ভবিষ্যতেও থাকবে।

সোমবার বিকেলে মিথলমা গ্রামে অসুস্থ হাফেজ রাশেদের চিকিৎসার অর্থ হস্তান্তরের সময় উপস্থিত ছিলেন সমাজসেবক হাজী মোসলেহ উদ্দিন, দৈনিক ব্রাহ্মনপাড়া-বুড়িচং সংবাদের সম্পাদক ও প্রকাশক সৈয়দ আহমেদ লাভলু, হাজী মোঃ সিদ্দিকুর রহমান, হাজী মোঃ আবুল হাশেম, নবী নেওয়াজ মাষ্টার, আবুল হাশেম, আলী আশ্রাফ, মিথলমা সমাজ কল্যান ট্রাস্টের কোষাধ্যক্ষ মোঃ নজরুল ইসলাম, প্রচার সম্পাদক সাংবাদিক মোঃ জাকির হোসেন, সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক সাব্বির বিন আশরাফসহ এলাকার অন্যান্য গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ।

After Related Post